অলরাউন্ডার টিরিগিরি তূর্যের গল্প

পরিচয় প্রতিবেদক

ছোটদের কাছে প্রিয় একটি নাম টিরিগিরি। দুরন্ত টিভিতে প্রচারিত ১৩০ পর্বের নাটক টিরিগিরি টক্কা থেকেই টিরিগিরির সাথে পরিচয় হয় ছোটদের। নাটকটির কেন্দ্রীয় চরিত্র ছিল টিরিগিরি। টিরিগিরি ছিলো একটা এলিয়েন। ভিনগ্রহ থেকে এসেছে। ঠিক এলিয়েন নয় রোবট, সুপার ক্ষমতা সম্পন্ন রোবট। নাম টিরিগিরি টক্কা। যারা টিরিগিরিকে চিনো টিরিগিরি নামে সে সবার প্রিয় তাওসিফ সাদমান তূর্য। তূর্য মতিঝিল মডেল স্কুল এন্ড কলেজে ইংলিশ ভার্সনে অষ্টম শ্রেণিতে পড়ে। সুপার ক্যারেক্টারে অভিনয় করা তূর্য শুধু সুপার অভিনয় শিল্পীই নয়, তার রয়েছে বহুমাত্রিক প্রতিভা। আবৃত্তি, গীটার বাজানো, সাঁতার, উপস্থাপনা, মডেলিং, ও কারাতেতেও সমানভাবে পারদর্শী তূর্য। ‍আর হ্যাঁ তূর্যের নাচও সমানভাবে সমাদৃত।

তূর্য ১৩০ পর্বের টিরিগিরি টক্কা ছাড়াও প্রায় ২৫টি বিশেষ নাটকে অভিনয় করেছে। অভিনয় করেছে খ্যাতিমান নির্ম‍াতা তানভীর মোকাম্মেল এর “রূপসা নদীর বাঁকে”, ধ্রুব হাসান এর মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক চলচ্চিত্র “দাহকাল” এবং “আব্বাস” চলচ্চিত্রে। চুক্তিবদ্ধ হয়েছে ছোটকু আহম্মেদ পরিচালনায় “আমার বাংলাদেশ” চলচ্চিত্রে । আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ ও বাংলাদেশের একজন প্রখ্যাত লেখকের জীবন নিয়ে একটি চলচ্চিত্রের কাজ খুবই শীঘ্রই শুরু হবে। বিস্তারিত আকর্ষণ হিসেবে থাক, বললো তূর্য।

তানভীর মোকাম্মেলের পরিচালনায় “রূপসা নদীর বাঁকে” ছবির সেট থেকে নেয়া ছবি।

অভিনয়ের মতো নৃত্যেও সমান পারদর্শী তূর্য রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর অনুষ্ঠানে একাধিকবার নৃত্য পরিবেশন করেছে। সরকারী সফরে ২০১৭ সালে তুরষ্কে, ২০১৮ ও ২০১৯ সালে ভারতে ২ বার নাচে বাংলাদেশের পক্ষে নেতৃত্ব দেয় তূর্য। বেসরকারি সফরে এনটিভির সৌজন্যে ২০১৬ সালে মালয়েশিয়াতে নাচের নেতৃত্ব দেয়। বিটিভি, এনটিভি, এটিএন বাংলা, বৈশাখী টিভি, এসএ টিভি, বাংলা টিভিসহ বিভিন্ন টেলিভিশন চ্যানেলে লাইভ ও রেকর্ডকৃত নাচ প্রচারিত হয়েছে তূর্যর। স্টেজ প্রোগ্রাম করেছে হোটেল ওয়েস্টিন, হোটেল সোনারগাঁ, হোটেল রেডিসান, হোটেল লি মেরিডিয়ান, হোটেল রিজেন্সি, আর্মি গলফ ক্লাব, বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্র, শিশু একাডেমি, বাংলা একাডেমিসহ বিভিন্ন বড় বড় অনুষ্ঠানে। তাওসিফ সাদমান তূর্যের নাচের গুরু ইভান শাহারিয়ার সোহাগ ও মুত্তাকিনুর রহমান ওয়াসেক।

এ্যাংকর মিল্ক, মজো সফট ড্রিংকস, রবি, তথ্য ও জ্বালানি মন্ত্রণালয়ের অনির্বাণ, মাইটি টিপস, ডোমেক্স, বসুন্ধরা সিমেন্ট সহ প্রায় ২৫টি টেলিভিশন বিজ্ঞাপনে অভিনয় করেছে। তারমধ্যে সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয়তা পায় এ্যাংকর মিল্ক এর বিজ্ঞাপনটি।

অভিনয়ের কোর্স, আবৃত্তি ও গীটার শিখছে বাংলাদেশ শিশু একাডেমিতে। অভিনয়ের শিক্ষক ছিলেন চন্দনা মন্ডল ও মাসুদ রানা । আবৃত্তি শিক্ষক হিসাবে পেয়েছে রূপশ্রী চক্রবর্তী ও সংগীতা চৌধুরীকে। গীটার প্রশিক্ষক শ্রদ্ধেয় আরমান রেজা চৌধুরী। তূর্য কারাতে প্রশিক্ষণ নিচ্ছে জাতীয় ক্রীড়া পরিষদে বাংলাদেশ কারাতে ফেডারেশনে প্রশিক্ষক মোজাম্মেল হক মিলন এর তত্ত্বাবধানে। বর্তমানে ৩ নং বেল্ট শেষে ৪ নং বেল্টের প্রশিক্ষণ চলছে।

বিভিন্ন টেলিভিশন চ্যানেল ও স্টেজে উপস্থাপনাও করেছে তূর্য। ভ্রমণ করেছেন তুরষ্ক, মালয়েশিয়া ও ভারত। জাতীয় পুরষ্কার প্রতিযোগিতায় নাচে ও অভিনয়ে বিভাগ পর্যায়ে, জেলা পর্যায়ে, থানা পর্যায়ে পুরষ্কার পেয়েছে ।

তূর্য অভিনীত জনপ্রিয় বিজ্ঞাপন এ্যাংকর মিল্ক এর সেট থেকে নেয়া ছবি।

অভিনয়ের শুরু সম্পর্কে তূর্য বলে- আমি শিশুএকাডেমিতে নাট্যকলা বিভাগে ভর্তি হয়েছিলাম। সেখানে অভিনয়ের ক্লাস করতাম। পাশাপাশি মডেলিং করতাম। একদিন আমার টিচার একটি নাটকের অডিশানের জন্য পাঠালেন। চার পাঁচবার বাছাইয়ের পর শেষ পর্যন্ত ৩ জনকে রাখলো। সৌভাগ্যক্রমে ঐ তিনজনের একজন আমি ছিলাম। আর ওটা ছিলো আমার সবচয়ে জনপ্রিয় নাটক টিরিগিরি টক্কার অডিশান। সে থেকেই অভিনয়ের সাথে মিশে যাই।
তূর্যের এগিয়ে যাওয়ার প্রেরণা তার মা-বাবা। তবে স্কুলের শিক্ষক, একাডেমির শিক্ষক, সবাই-ই তাকে প্রচুর উৎসাহ দেয়।

তূর্য পড়ালেখা, অভিনয়, নাচ-গান, কারাতের পর অবসর আর তেমন একটা পায় না। যদিও পায় সেই সময়টুকু কাটায় কখনও নাচ, কখনও গীটার, কখনও আবৃত্তি করে। কখনও আবার মুভি দেখে, দাবা খেলে সময় পার করে।

তূর্য লেখাপড়ার সর্ব্বোচ্চ ডিগ্রী শেষ করে বড় মাপের একজন অভিনয় শিল্পি হতে চায়। বড় হয়ে হাল ধরতে চায় বাংলাদেশের ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির।

আপনার মতামত দিন