এবারের জন্মদিন অন্যরকম ছিল : আয়াজ মাহমুদ

পরিচয় ডেস্ক:

আয়াজ মাহমুদ। রাজধানীর সেন্ট জ্যাকব স্কুলে কেজি ক্লাসে পড়ে। ছোট্ট হলে কি হবে! এখন পর্যন্ত অনেকগুলো টেলিভিশন বিজ্ঞাপনে মডেলিং করেছে। শুধু কি তাই? শুনলে তো অবাক হবে! মাত্র এক বছর বয়সেই আয়াজ বিজ্ঞাপনের মডেল‍। সম্প্রতি রবির টিভি বিজ্ঞাপনের শুটিং শেষ হয়েছে। আর হ্যাঁ, যে জন্য আয়াজকে তোমাদের সামনে নিয়ে অাসা সেটাই বলছি- আজ (১৩ জুলাই) আয়াজের ৭ম জন্মদিন। জন্মদিনে আয়াজকে অনেক অনেক শুভেচ্ছা।

আয়াজের এবারের জন্মদিনটা একটু অন্যরকম ছিল। সেটাই শেয়ার করেছে আয়াজ। আয়াজ বলে- এবারের জন্মদিনটা একটু অন্যরকম ছিল। কারো সাথে দেখা হলোনা। তবে মেসেঞ্জারে সব বন্ধুরা আমাকে উইস করেছে রাত ১২ টার পর। তাছাড়া বেশি ভাল লেগেছে সকাল বেলা আমার ঘুম ভেংগে দেখি আমার বিছানা জুড়ে বেলুন আর বালিশের পাশে বেশ কয়েকটি গিফট বক্স। আমি তো দেখে এত অবাক যে প্রায় অজ্ঞানই হয়ে যাবো মনে হচ্ছিল। আর হ্যাঁ, অনলাইন ক্লাসে মিস ও স্কুল বন্ধুরা আমাকে উইস করেছে।

TVC, OVC ফটোসুট সহ প্রায় ৩২টি কাজ করেছে আয়াজ। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য ওয়ান ব্যাংক, বসুন্ধরা সিমেন্ট, ইউনাইটেড হসপিটাল, সিম্ফনি H400, মেরিল বেবি লোসন স্পেশাল অফার, ডিপ্লোমা মিল্ক, প্রাণ ঝটপট ফ্রজেন ফুড, জি গ্যাস, বিজ্ঞান বাক্স, ব্রাক সচেতনতামুলক একটি কাজ, অলিম্পিক অয়েফার, প্রাণ গ্রুপের বিস্ক ক্লাব বিস্কুট, ওয়াল্টন রেফ্রিজারেটর বিশেষ অফার, প্রাণ গ্রুপের ঈদের খুশীর বাজার, পার্ট ১ ও পার্ট ২। বাবা দিবস উপলক্ষে মিনিসো বাংলাদেশরে একটি কাজও করে ২০১৯ সালে। বসুন্ধরা আটা ময়দা বিলবোর্ড এর বিজ্ঞাপনে মডেল হয়েছে আয়াজ।

ওয়ান ব্যাংক স্কুল ব্যাংকিং বিজ্ঞাপনে মডেল আয়াজ

আয়াজের মডেলিংয়ের শুরুটা হয় মাত্র এক বছর বয়সে। Neocare Baby Diapers এর বিজ্ঞাপনের মাধ্য। শুটিং হয় কোক এ। শুটিং এর শুরুতে দারুণ এনজয় করছিলো আয়াজ। কিন্তু প্রচণ্ড গরমে অবস্থা খারাপ হয়ে ভিশন কান্নাকাটি করে দেয়। শুটিং করা খুবি মুশকিল হলেও তখন তার কান্নার সিকুয়েন্সটাই ক্যামেরা বন্দি করা হয়। কেন জানো? বাচ্চারা ভেজা ডায়াপার এ কমফোর্টএবল নয় দৃশ্যর জন্য। এরপর দের বছর কোন কাজ করা হয়নি।

আয়াজ তার মজার অভিজ্ঞতা শেয়ার করে বলে – ‌‌‌মেরিল বেবি লোসন এর বিজ্ঞাপনটা খুব বেশি লেগেছিল মানুষের। যেটা দেখে অনেকেই মজা করে আমাকে গান শুনিয়ে বলত..না না তুমি হাসবে না। সে সময় আমার দাঁত পড়ে গিয়েছিল পোকা খেয়ে। তাই সবাই মজা করতো। কিন্তু তা নিয়ে কখনো কখনো ভিশন লজ্জাও পেত আমার।

আয়াজের আবার ভয়ও করছিলো। সেটা বলেছে আমাদের। আয়াজ বলে- মেরিল বেবি লোসন এর সাবরিনা আইরিন ডিরেক্টর বিগ বস আন্টি কে কাজ করার সময় একটু ভয় ভয় লেগেছিল । কিন্তু এখন একদম বিগ বসকে ভয় পাইনা। হা হা।

বসুন্ধরা আটা ময়দা সুজির বিজ্ঞাপনে মডেল আয়াজ

আরেকটি মজার ঘটনা বলছি, শোনো-
সিম্ফনি H400 এর বিজ্ঞাপনের কাজ কারার সময় আয়াজ মাত্র টাইফয়েড থেকে সুস্থ হয়ে উঠেছে, সে অনুযায়ী তার ক্লান্ত থাকা স্বাভাবিক হলেও মোটেও তাকে দেখে বুঝার উপায় নেই। শুটিং শুরুর আগের লম্বা একটা সময় অপেক্ষায় থাকতে হয় তাকে, যার সবটা সময় কাটে অস্থির চঞ্চলতার মধ্য দিয়ে। এরপর যখন তার শর্ট শুরু হয় লাইট ক্যামেরার সামনে তাকে বলা হয় চোখ বন্ধ করে ঘুমের অভিনয় করতে, সে তখন সত্তিই ঘুমিয়ে পরে গভীর ঘুমে। ডিরেক্টর টিটো তখন শুটে বিরতি দিয়ে দেন তাকে ঘুমোতে দেয়া হয়। ঘুম শেষে শুট হয়।

একটি বিজ্ঞাপনের শুটিং সেটে বন্ধুদের সাথে আয়াজ

মডেল অভিনয়ের বাইরে ট্যাবে গেম খেলতে, কার্টুন দেখতে, ভূতের মুভি ভিষণ পছন্দ করে আয়াজ। প্রিয় বন্ধুদের সাথে ভিডিও কলে আড্ডা দিতেও ভাল লাগে। নতুন নতুন বন্ধু পেতে তার দারুণ ভাল লাগে। আয়াজকে সবসময় গাইড করেন ও অনুপ্রেরণা দেন তার মা।

আয়াজ বলে- আমার অভিনয় করতে ভাল লাগে। কারণ অনেকে আমাকে কিউট বলে। আমার কথা শুনতে নাকি অনেকের খুব ভাল লাগে। তাই কাজ দেখে অনেকেই আমাকে জানবে, চিনবে ,আমার ফ্যান হবে, এইসব ভেবেই আমার কাজ করতে ভাল লাগে, উৎসাহ আসে। আমি আমেরিকাতে গিয়ে বাংলাদেশি মডেল হয়ে এ্যাড (বিজ্ঞাপন) করবো ইনশাআল্লাহ।

আপনার মতামত দিন