কবিতা: প্রশ্ন

ইস্রাফিল আকন্দ রুদ্র:

হাতে হাত রেখে পাশাপাশি সমান্তরালে হাঁটা

হাত ধরে রাস্তা পার হওয়া,রিক্সায় করে ঘুরে বেড়ানো হাতে চুড়ি পরিয়ে দেওয়া,অযথা কারণে যেখানে সেখানে রাগ দেখানো সব কী অতীত হবে?

দীর্ঘ সময় হবে না দেখা,যতদিন যাবে!

এইসব ভাবতেই শিউরে উঠে আমার ভাবনার দেয়াল

কেবলই যাতনাময় অতীতে উদ্বেলিত করবে কী আমায়?

না,তা হবে না,তা হবে না।অন্য কোনো অবলার দিকে তাকালে আমার মুখ,চোখ চেপে ধরা-

এ ছাদ থেকে ও ছাদে হাত বাড়িয়ে তোমায় নেওয়া

 

গিফটের পরিবর্তে প্রচুর ভালোবাসা নেওয়ার দাবি

দাঁড়ি ভর্তি গালে আদর মাখা স্পর্শ,আড়ালে চাহনি

আমার কক্ষের বই বোঝাই করা নির্লিপ্ত সাধারণ টেবিলে- তোমার পড়ার তীব্র আকাঙ্ক্ষা

হঠাৎ গভীর রাতে আমাকে দেখার তীব্র পিপাসা

আমার মাথা থেকে পাকা চুল এনে দিয়ে

নানান বিশ্লেষণ ধর্মী হাস্যকর বয়ান। এইসব কী ক্রিয়ার কালের – নিত্যবিত্ত অতীত হবে?

তখন কী আমরা দুজনেই বলবো- তাম,লাম ?

 

এসবের কিছুই চাইনা, কিছুই না।

আমার মনের বিচরণ যত স্থান জুড়ে-

ততদূর ভেবে কী স্মৃতি রোমন্থন হয়ে পড়বে?

আমার প্রতিটি লেখা জমা করছো তোমার নিকট, ভাবতেই ভয় লাগে- সেগুলো কী কখনো আগুনে ভস্মীভূত হবে কিংবা অবহেলিত জনগোষ্ঠীর মতন পড়ে থাকবে কোনো এক ভালোবাসা খেকো রাস্তায় (?)

 

হিমাচল, শ্রেয়ান কক্ষ, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬।