চিকিৎসাবঞ্চিত মানুষদের সেবা করতে চাই : আদৃতা রহমান মিথিলা

ছোট্ট বন্ধুরা, বরাবরের মতো তোমরা আজ এক নতুন বন্ধুর সাথে পরিচিত হবে। তার নাম হলো, আদৃতা রহমান মিথিলা। বয়স ১৪ বছর। আদৃতা দু’টি বিজ্ঞাপন, দু’টি শর্টফিল্ম ও একটি নাটকে অভিনয় করেছে। সে এতদিন শুধু নাচ করেছে। বিভিন্ন প্রোগ্রাম ও টেলিভিশনে নাচ করলেও নাটক, বিজ্ঞাপনে কাজ করা হয়নি তার। কিছুদিন আগে থেকেই সে নাচের পাশাপাশি নাটক ও বিজ্ঞাপনে কাজ করতে শুরু করেছে। তবে ভবিষ্যতে অনেক কাজ করার ইচ্ছে আছে তার। আর সে লক্ষ্যেই এগিয়ে যাচ্ছে সে। বর্তমানে তার শর্টফিল্ম ‘টিনেজ লাভ’ এবং ‘বরিশাইলা ফটকা’ দু’টি বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছে।
আজ একটি সাক্ষাৎকারের মাধ্যমে তার সাথে পরিচিত হবে তোমরা। সাক্ষাৎকারটি নিয়েছেন টিন এবং ইয়ুথ প্লাটফর্ম পরিচয়’র ইয়ুথ কো-অর্ডিনেটর শিশুসাহিত্যিক তুফান মাজহার খান।

পরিচয়: কেমন আছো?
মিথিলা: আমি ভালো আছি।

পরিচয়: তোমার বয়স কত? কোন ক্লাসে পড়?
মিথিলা: আমার বয়স ১৪। আমি ক্লাস টেন এ পড়ছি।

পরিচয়: তোমার স্কুলের নামটা একটু বলো।
মিথিলা: শামসুল হক খান স্কুল এন্ড কলেজ।

পরিচয়: মিডিয়ার কাজে তোমার অনুপ্রেরণা দানকারী কে?
মিথিলা: আমার আম্মু।

পরিচয়: বাহ্! তাহলে তো অনেক সুবিধা। ঘরের মানুষ যখন অনুপ্রেরণা দেয় তখন কাজ করাটা অনেক সহজ ও ফলপ্রসূ হয়। প্রথম কার মাধ্যমে কাজে প্রবেশ করেছিলে?
মিথিলা: আমার নৃত্য শিক্ষক জোবায়ের হোসেন নাঈম।

পরিচয়: তুমি তো সবগুলো কাজ এ করোনাকালেই করেছো, তাই না?
মিথিলা: হ্যাঁ।

পরিচয়: তাহলে তো আর লেখাপড়া এবং কাজ, দুটো সামলাতে আর কোনো সমস্যা হয়নি?
মিথিলা: না।

পরিচয়: তা বর্তমান করোনাকালে কীভাবে সময় কাটাচ্ছো?
মিথিলা: অবসর সময়ে নাচ করি, আম্মুর কাজে সাহায্য করি, ছাদে সময় কাটাই।

পরিচয়: আচ্ছা, এবার বলো স্কুলে কতজন বন্ধু আছে এবং তাদের মিস করো কিনা?
মিথিলা: ক্লাসমেটরা তো সবাই বন্ধু। সবাইকেই মিস করি। তবে আমার বেস্ট ফ্রেন্ড মায়মুনাকে বেশি মিস করি।

পরিচয়: দীর্ঘদিন ধরে তো স্কুল বন্ধ আছে। এর মধ্যে কি তোমার বেস্ট ফ্রেন্ডের সাথে দেখা হয়েছে?
মিথিলা: হ্যাঁ, দুইবার দেখা হয়েছে।

পরিচয়: তোমার প্রিয় ব্যক্তি কে?
মিথিলা: আমার আম্মু।

পরিচয়: তোমার প্রিয় জায়গা কোনটি? যেখানে তুমি ঘুরতে যেতে চাও।
মিথিলা: আমার প্রিয় জায়গা সাজেক ভ্যালি। তবে এখনো ঘুরতে যেতে পারিনি।

পরিচয়: আর প্রিয় খাবার কোনটি?
মিথিলা: চকলেট।

পরিচয়: সাগর, নদী, পাহাড় কোনটি ভালো লাগে?
মিথিলা: পাহাড়।

পরিচয়: বড় হয়ে তোমার যদি মানুষের জন্য কোনো ভালো কিছু করার সুযোগ হয়, তাহলে তুমি কী করতে চাও?
মিথিলা: ডাক্তার হয়ে গ্রামের চিকিৎসাবঞ্চিত মানুষদের সেবা করতে চাই। যারা টাকার অভাবে ভালো চিকিৎসা পায় না।

পরিচয়: বড় ভালো চিন্তা। বড় হয়ে কী শুধু ডাক্তারই হবে। অভিনয় বা মিডিয়া ছেড়ে দিবে?
মিথিলা: না, অভিনয়টা তো আমার একটা শখ বা নেশা। পেশা হিসেবে ডাক্তারই হতে চাই। তবে অভিনয় বা মডেলিংটাও পাশাপাশি করতে চাই।

পরিচয়: টিভিতে কাজ করায় তোমার বন্ধুদের প্রতিক্রিয়া কী? তারা তোমাকে কীভাবে দেখে?
মিথিলা: তারা তো অনেক মজা করে। আমাকে সেলিব্রেটি সেলিব্রেটি বলে ডাকে।

পরিচয়: তোমার মনের আশা পূরণ হোক। দেশের জন্য, মানুষের জন্য কাজ করার সুযোগ হোক। জীবনে অনেক বড় হও। অনেক অনেক শুভ কামনা তোমার জন্য। পরিচয়কে সময় দেওয়ার জন্য তোমাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ।
মিথিলা: আপনাকেও ধন্যবাদ।

আপনার মতামত দিন