তবুও তার হৃদয়ে ক্ষরণ হয়

সে তার ভালোবাসার মানবী হতে চায়

মোবারক ইবনে মনির 
.
রাতের মধ্যে দুপুরে কেউ একজন কাঁদে, খুব কাঁদে, সে তার প্রেমিক হারিয়েছে, আমি তাকে সান্ত্বনা দেবার চেষ্টা করি, সে সাধারণভাবে মেনে নেয়—বিষণ্ণ মনে।
সে আবার কাঁদে, একলা হলেই কাঁদে, কেউ তাকে কাঁদতে বারণ করে না, আমি বুঝাতে চেষ্টা করি—যে আপনার হবার ছিলো না—সে কখনোই আপনার হবে না। সে চুপচাপ শুনে, সে বুঝে, জানেও—তবুও তার হৃদয়ে ক্ষরণ হয়।
সে এখন রাত জাগে, তবে তার কান্না কেউ দেখেনা, শুনেনা, বুঝেনা। সে মুক্তি চায় মায়া থেকে; আমি বলি, কিছুদিন গেলে মায়া এমনিতেই কেটে যাবে। তার বিশ্বাসে দৃঢ়তা আসতে সময় কেটে যায়।
আমি তাকে সঙ্গ দিতে চাই, সে আমাকে কেমন বুঝে জানিনা, আমি তাকে সৎ থাকতে বলি, সৎ ব্যক্তি কখনো পরাজিত হয় না৷ এই বিশ্বাস নিয়ে জীবনের দীর্ঘ পথ শেষ করতে বলি। সে মৌন সম্মতি প্রকাশ করে।
এখনো তার বুকের বা-দিকের কষ্ট কমেনি, দুঃখ পুষে থাকতেই তার ভালোলাগে। কিন্তু এভাবে দুঃখ পুষে আর কতদিন!
কার জন্য সে কাঁদে—যে তাকে ভুলে গেছে, কার জন্য সে দুঃখ পুষে—যে তাকে ছেড়ে দিয়ে উল্লাস করে, কার জন্য সে একা হয়—যে তার সঙ্গ ছাড়া খুব ভালো দিন পার করে, কার জন্য সে ভালোবাসা দেখায়—যে অন্যত্র তার ভালোবাসা দিয়ে দিয়েছে।
সে পৃথিবীর তাবৎ মন খারাপ নিয়ে বসে থাকে, দিন গুজরান করে, তার কোন বন্ধু নাই, সে বন্ধুদের সঙ্গ চায়—তারা দূরে সরে যায়, সে কাওকে আপন করে কাছে পেতে চায়—অথচ তার দুঃসময়ে কেউ আপন হয় না।
আমি অচেনা মানুষ, তার সাথে পরিচিত হতে চাই, সে পরিচয় দেয়, তারপরও অপরিচিত থেকে যায়।
পৃথিবীকে সে এখন স্বার্থপর দেখে, বেঈমান ভাবে, ঘৃণা করে, অবিশ্বাস করে। সে এখন কোন মানুষকে সহ্য করতে পারেনা।
তার অভিমানের ভাষা কেউ বুঝতে চায় না, কেউ আগ বাড়িয়ে জিজ্ঞেস করেনা—প্রিয়তমা, তোমার কি হয়েছে, আমাকে খুলে বলো, আমি ভালোবাসা দিয়ে সব সমাধান করে দেবো।
তার রাগ, জিদ কেউ মেনে নিতে চায় না, সবাই তাকে বিরক্তির কারণ মনে করে, সে আরো দুঃখ পুষে, আরো গুমরে মরে, আরো নিঃসঙ্গ হয়, আরো কান্না করে—অথচ তার কান্না করা বারণ, একলা থাকা বারণ।
সে তার ভালোবাসা ফেরত চায়, সে তার অনুভূতির পুনরুদ্ধার করতে চায়, সে স্বার্থপরকে ভালোবাসা দিতে চায় না, যে তাকে কখনো ভালোবাসতে পারেনি, তাকে ভালোবাসা দিয়ে ভালোবাসার অসম্মান করতে চায় না।
তবুও সে কাঁদে, রাত দুপুরে, দিন দুপুরে, তার ভাষা কেউ বুঝেনা, তার আত্মসম্মান বেশি, তার আত্মবিশ্বাস বেশি—সে পরিবর্তন চায়, সে সুন্দর পৃথিবী দেখতে চায়, সে প্রতারণার ভুবনে বাস করতে চায়না, সে অবিশ্বাসের দুনিয়ায় সাংসারিক হতে চায় না।
সে প্রেমময় জীবন চায়, সে সুখময় ভালোবাসা চায়, একজনের মধ্যে ডুবে থাকতে চায়, সে অন্য কারো হতে চায় না।
সে এমন কাওকে ভালোবাসতে চায়—যে তাকে ভালোবাসবে, তার সবকিছু আদরে মেনে নিবে, তাকে বুঝতে, তাকে ছাড়া আর কাওকে আপন বলে কল্পনা করবেনা।
সে শুধু তার জন্যই হাসবে, তার জন্যই কাঁদবে, তার জন্যই অভিমান করবে, তার জন্যই সাজবে, তার জন্যই ফুল কিনবে, তার জন্যই ফুল চাষ করবে, তার জন্যই রাগ জমিয়ে রাখবে, তার জন্যই অপেক্ষা করবে।
তার জন্যই সে অতীত ভুলে যাবে, তার জন্যই সে কষ্টকে নিত্যসঙ্গী করবে, তার জন্যই সে সংসার বাঁধবে, তার জন্যই সে বেঁচে থাকবে। কেবল তার জন্যই। অন্য কারো জন্য নয়।
সে যে তার—সে তার সঙ্গতায় রাত্রি পার করতে চায়, সে তার ভালোবাসায় মৃত্য বরণ করতে চায়, সে তার সুখে সুখী হতে চায়, সে তার দুঃখে দুঃখী হতে চায়। সে তার একমাত্র প্রিয়তমা হতে চায়, সে তার একমাত্র ভালোবাসার মানবী হতে চায়।

আপনার মতামত দিন