পবিত্র মহন্ত জীবন এর তিনটি ছড়া-

 

তিতুঁ ভূতের গল্প

রূপকথার গল্প বলি –
শুনলে পাবে ভয়!
খিলখিলয়ে হাসতে থাকে
দেখতেও ভালো নয়,
ইয়ে মোটা দেখতে কালো
মাথায় খারা শিং ,
শ্যাওড়া তলে থাকেও নাকি
তার ছেলে রিংটিং!
ঠিক!দুপরে হয়তো তখন
ঘুরতে যখন আসে
কেউ যেতেননা শ্যাওড়া তলে
তিতুঁ ভূতের কাছে।
গভীর রাতে জমে উঠে
ভূতের খেলা বেশ!
আগুন দেখলে পালিয়ে যায়
ভুতের খেলা শেষ।

চিড়িয়াখানা

চিড়িয়াখানা দেখে এলাম
সুন্দরবনের বাঘ,
বাঘ তখন আমায় দেখে
করলো ভীষণ রাগ!
নাদুসনুদুস ভাল্লুকের দল
ময়না-টিয়া পুসি,
গাছে ডালে ঝুলিয়ে বানর
করছে খেচাখেচি।
চকচকে ওই হরিণ গুলি
করছে ছুটাছুটি!
চিড়িয়াখানা দেখে এলাম
ভালোবাসার জুটি।
পেখম তুলে ময়ূর নাচে
কত্ত!কাছাকাছি
দৃশ্য দেখে আমিও তখন
পেট ফুলিয়ে হাসি।।

ছড়া চাষের মালী

ছড়া আমার বুদ্ধিগুগোল
ছড়া’য় বলাবলি
তবে এবার ভূত তাড়াবে
মন্ত্রছড়া গালি।
ছড়া আমার গোলাবারুদ
সত্য-ন্যায়ের কালি
টকমিষ্টি ঝালে সাথে
তাইতো দিলাম ঢালি।
ছড়া আমার কচিকাঁচা
খোকন সোনার তালি
ছড়া আমার শান্ত দিতে
একখানি চাঁদ ফাঁলি।
ছড়া আমার সাতসকালে
ফুল ফুটানো কলি
এখন আমি সেই বাগানে
ছড়া চাষের মালী।

আপনার মতামত দিন