প্যারাসুট আবিস্কারের কাহিনী

প্রাচীনকাল থেকেই মানুষের ছিল পাখিদের মত আকাশে ওড়ার শখ। সেই শখ থেকেই মানুষের মনে ছিল আকাশে ওড়ার বিভিন্ন জিনিস আবিস্কারের নেশা। ফ্র্যাঞ্জ রেইচেল্ট নামের অস্ট্রিয়ায় জন্ম নেয়া এক ফরাসী দর্জির মনে হয় আকাশে ওড়ার ইচ্ছাটা একটু বেশিই ছিল। তাই তিনি ‘Flying Tailor’ নামে একধরনের স্যুট আবিস্কার করেছিলেন যা প্যারাসুটের কাজ করবে। তার নির্মীত স্যুট কতটকু কার্যকর তা পরীক্ষা করে দেখার জন্য তিনি ব্যাকুল হয়ে পড়েন এবং ফরাসী কর্তৃপক্ষের কাছে বার বার অনুরোধ করেন তাকে যেন তার নির্মীত প্যারাসুট কতটকু কার্যকর তা আইফেল টাওয়ার থেকে পরীক্ষা করে দেখার অনুমতি দেয়া হয়। কর্তৃপক্ষের অনুমতি পাওয়ার পর ১৯১২ সালের ৪ ফেব্রুয়ারি সকাল সাতটায় ফ্র্যাঞ্জ তার দুই বন্ধুকে নিয়ে আইফেল টাওয়ারে যান। প্রথমে একটি ডামির সাহায্যে পরীক্ষা চালানো হলে সেটি সফল হয়। ফলে ফ্র্যাঞ্জ নিজেই সিদ্ধান্ত নেন নিজের নির্মীত স্যুট নিয়ে আইফেল টাওয়ার থেকে লাফ দিবেন। বন্ধুরা লাফ না দেয়ার অনুরোধ করলেও তিনি তাতে কর্ণপাত করেননি। তার বিশ্বাস আর উদ্ভাবন দুইটাই তার পক্ষে না থাকায় লাফ দেয়ার পর কাজ করেনি তার আবিস্কার, ফলে ১৮৭ ফুট উঁচু থেকে তিনি ভূপাতিত হন অসংখ্য মানুষের সামনে। দ্রুত তাকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে ডাক্তাররা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। পরবর্তীতে তার তৈরি ‘Flying Tailor’ থেকে নেয়া ধারণা ‘প্যারাসুট’ তৈরিতে সহায়ক হয়েছিল।

মোঃ মাহমুদুর রহমান খাঁন                 খিলগাঁও,ঢাকা।