কবিতা: ভালোবাসতে হয়

মো. আ. কুদদূস

একজন নারীকে ভালোবাসতে হয়,
মনের গভীর থেকে,
পদ্মা মেঘনার প্রবল জোয়ারের মতো উচ্ছ্বাসে,
গোধূলির আকাশে রঙিন ঘুড়ির মতো ছেড়ে দিয়ে,
একটি লাল ঠোঁটের রাঙা পায়ের সাদা কবুতরের মতো শূন্যে ভাসিয়ে দিয়ে।

একজন নারীকে ভালোবাসতে হয়,
পূর্ণিমার পূর্ণ শশীর মতো,
অন্ধকার চাঁদকে গ্রাস করলেও সে স্বরূপে ফিরে আসেই,
হয়তো সময়ের সংক্ষিপ্ত ব্যবধানে,
নয়তো সব হারিয়ে দীর্ঘকাল পরে,
জীর্ণ পরিচ্ছদ পরে,
তবু ভালোবাসার বিন্দুতে সে ফিরে আসেই।

একজন নারীকে ভালোবাসতে হয়,
জীবনের সব অলিতেগলিতে ফেলে,
হারিয়ে ফেলার আগে,
কিংবা খুঁজে পাওয়ার পরে,
চাঁদনী চকের ভীড়ে,
এবং তুরাগের নির্জন তীরে,
কুয়াশাবৃত ষোলই ডিসেম্বরে,
অনন্তকালের জীবনযাত্রার সামিয়ানায়।

একজন নারীকে ভালোবাসতে হয়,
ভুলে খেয়ালে বেখেয়ালে,
সময়ের আবর্তনে,
হিসেবের বাইরে,
বেহিসেবি সংসারী সেজে,
সবুজ পাহাড়ের অরণ্যে,
নীল সাগরের তরঙ্গে ভেসেভেসে,
কারণ, একজন নারী যেনো সুখসাগর।

একজন নারীকে ভালোবাসতে হয়,
যখন মন চায় তখন,
বৃষ্টির রিমঝিম ছন্দে,
এবং শরতের শিউলে তলে,
রূপ যৌবন থাকলে,
কিংবা ধূসর একজন প্রেমদায়ীনিকে,
শাশ্বত প্রেমের বন্ধনে,
বহমান জীবনের সহস্র অনুষঙ্গে।

একজন নারীকে ভালোবাসতেই হয়,
উন্মাদনায়,
এবং টুকিটাকি প্রয়োজনে,
শান্ত স্নিগ্ধ দীঘির জলের মতো প্রশান্ত মনে,
সে কিছু দিতে না পারলেও,
ঠিকই বাঁচতে শিখায় অজস্র ব্যঞ্জনায়,
বেঁচে থাকার ক্ষুদ্র তাগিদে হলেও,
তাই আমাকে,
একজন নারীকে ভালোবাসতেই হয়।

১২ মে ২০২০
ঢাকা

আপনার মতামত দিন