যদি কবিতারা ধর্মঘট শেখে

রাজু অনার্য

যদি গাছেরা ধর্মঘট শেখে
বৃক্ষরা, লতা-গুল্ম আচ্ছাদিত সবুজ পাতারা,
মুখ থুবরে পড়বে প্রাণ; অক্সিজেন শূণ্য পৃথিবীতে।
পাখি ও প্রাণি হারাবে ছায়ার শীতল প্রশান্তি, দুর্দিনে বিশ্বস্ত আশ্রয়।

যদি ফুলেরা ধর্মঘট শেখে
পৃথিবীতে জন্মাবে না আর আগামীর নতুন স্বপ্ন,
সৌরভে মাতোয়ারা হবে না প্রাণচঞ্চল বসন্তের উদাস বায়ু।
যদি ফসলেরা ধর্মঘট শেখে
নতুন দিনে আর জন্মাবে না সবুজ চারারা; দুর্ভিক্ষপীড়িত পৃথিবীতে।

যদি ধর্মঘট শেখে প্রজাপতি, মৌমাছিরা
পৃথিবীর সব ফুলেরা হয়ে যাবে বন্ধ্যা;
বৃতিতে শুকিয়ে ঝরে শেষ হবে তাদের নিরর্থক এক জীবন।
যদি পাখিরা ধর্মঘট শেখে
পৃথিবী হারাবে তার সবটুকু রঙ,
সুরেলা সঙ্গীত মুখ থুবড়ে পরবে বিশুষ্ক পথ ও প্রান্তরে।

যদি প্রদীপ্ত সূর্যের আলোরা ধর্মঘট শেখে
অশুভ আঁধারে ঢেকে যাবে পৃথিবী, বিপুল প্রাণের অস্তিত্ব।

যদি পূর্ণিমা চাঁদের স্নিগ্ধ আলোরা ধর্মঘট শেখে
পৃথিবী থেকে হারিয়ে যাবে শাশ্বত সুন্দর শীতলতা,
প্রেমিকার ম্লানায়মান মুখায়ব দূরতর, ক্রমশ ম্রিয়মান।
যদি তারারা ধর্মঘট শেখে
দ্যুতি হারাবে পৃথিবীর সব প্রেমিকার উজ্জ্বল-উচ্ছ্বল চোখ।

যদি নদীর প্রবহমান জলধারা ধর্মঘট শেখে,
যদি দূর আকাশের মেঘেরা ধর্মঘট শেখে
তবে পৃথিবী হবে প্রেমহীন হৃদয়ের মতো বিশুষ্ক প্রান্তর।
প্রতিটা ইঞ্চিতে, বাতাসের প্রতিকণা বালুময়; কেবল বেদনায়।

অর্পিতা, যদি কবিতারা ধর্মঘট শেখে
শরীর থেকে খসেপড়া গহনার মতো হারাবে একে একে
তোমার সৌন্দর্য। চিবুকের তিল। ঘর্মাক্ত নাক।
হারিয়ে যাবে আমাদের প্রেম;
তোমার দীঘল চুলের মতো নিকষ অন্ধকারে।

যদি কবিতারা ধর্মঘট শেখে
যদি সুশোভিত শব্দেরা আর কবিতা না হয়!
যদি নিখুঁত উপমা ও রূপকে না ফুটে ওঠে
প্রেমিকার সৌন্দর্য ও প্রেমমথিত আবেগ; ভালোবাসা।
তবে প্রেম, সৌন্দর্য ও তোমার অভাবে পৃথিবী হারাবে তার গতি।

অর্পিতা, যদি কবিতারা ধর্মঘট শেখে
আমাকে হারাবে তুমি; আমিও তোমাকে।

আপনার মতামত দিন