শিশু-কিশোরদের জন্য নিরাপদ ভিডিও স্ট্রিমিং অ্যাপ ‘বেবিটিউব’

পরিচয় প্রতিবেদক

বাংলাদেশের শিশু-কিশোরদের জন্য নিরাপদ, মজাদার এবং শিক্ষণীয় ভিডিও স্ট্রিমিং/শেয়ারিং সাইট “বেবিটিউব”। শিশু-কিশোর নির্ভর অ্যাপ ভিত্তিক প্রথম ভিডিও শেয়ারিং সাইট এটি। অ্যাপের পাশাপাশি সেবাটি পাওয়া যাবে বেবিটিউবের প্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইটেও।

বয়স ভেদে যে কেউ এই সাইটে ভিডিও আপলোড করতে পারবেন। তবে বেবিটিউবে শিশুদের বিকাশের পথে বাধা হয়, এমন কোনো ভিডিও দেয়া যাবে না। এর করার কারণ হচ্ছে, প্রতিটি শিশু যেনো থাকে নিরাপদে ইন্টারনেট ব্যবহারের আওতায়। অভিভাবকরাও যেনো হতে পারেন নিশ্চিন্ত। সে কারণেই বেবিটিউবে শিশু-কিশোরদের জন্য ক্ষতিকারক ভিডিও থাকবে না। এ বিষয়ে সার্বক্ষনিক মনিটরিংয়ের মাধ্যমের অনুমোদনের পরই স্বল্প সময়ের মধ্যে অ্যাকাউন্ট হোল্ডারদের ভিডিওটি আপলোড করা হবে। সব ক্যাটাগরির  ভিডিও আপলোড করা যাবে। যেমন খেলাধুলা, কার্টুন, পড়াশোনা, মুভি, নাটক, গেম, গান, গজল, ট্রাভেল, ব্লগ, টেকনোলজিসহ শিশু-কিশোর নির্ভর সবকিছু। তবে সেগুলো হতে হবে শিশুদের জন্য পজিটিভ ও মজাদার।

আজকের শিশু-কিশোররা মোবাইল ও ইন্টারনেটনির্ভর। তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহার বেড়ে যাওয়ার কারণে প্রায় সব শিশু কিশোররা মোবাইল ও ইন্টারনেট ব্যবহারে বেশ আগ্রহী। আর তাই অভিভাবকদের দুশ্চিন্তা; তাদের সন্তান যেনো কোনোভাবেই খারাপ কিছুতে জড়িয়ে না যায়? তাদের দুশ্চিন্তার অবসান ঘটাতেই বেবিটিউবের এ উদ্যোগ।

বেবিটিউবের মাধ্যমে শিশুদের জন্য একটি নিরাপদ ইন্টারনেট প্লাটফর্ম নিশ্চিত করার লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছেন বেবিটিউব পরিচালনা পর্ষদ। বিজ্ঞানের আশীর্বাদ থেকে শিশুদের বঞ্চিত না করে সঠিক ও শিক্ষণীয় বিষয় পৌঁছে দিতে নয়া আয়োজন ভিন্নধারার চিন্তার নাম বেবিটিউব।

বেবিটিউবের চেয়ারম্যান সাইদুল করিম মিন্টু বলেন, দিন দিন বাড়ছে প্রযুক্তির ব্যবহার, প্রায় প্রতিটি পরিবারে বেড়েছে মোবাইল ও ইন্টারনেট ব্যবহার। সে কারণেই শিশু-কিশোরদের নিরাপদ ইন্টারনেট প্লাটফর্ম ভিডিও শেয়ারিং সাইট বেবিটিউব।

বেবিটিউবের প্রতিষ্ঠাতা শামীম আশরাফ বলেন, প্রযুক্তির দুনিয়ায় বেবিটিউব হবে শিশু-কিশোরদের জন্য শিক্ষণীয় ও নিরাপদ ইন্টারনেট প্লাটফর্ম। প্রতিটি শিশু-কিশোর যেনো থাকে নিরাপদ ইন্টারনেটের আওতায়। প্লে স্টোর থেকে BabyTube লিখে সার্চ দিয়ে ডাউনলোড করে ব্যবহার করতে পারবে এবং সরাসরি baby-tube.com ওয়েবসাইট থেকেও ব্যবহার করতে পারবে।

বেবিটিউবের উপদেষ্টা এডভোকেট আবরার আহমেদ চৌধুরী (শাকিল) জানান, অভিভাবক হিসেবে আমি আমার সন্তানকে নিশ্চিন্তে বেবিটিউব ব্যবহার করতে দেই। আমিও বেবিটিউব ব্যবহার করে অনেককিছু শিখতে পারি৷

বেবিটিউবের সহ-প্রতিষ্ঠাতা সাজ্জাদুল ইসলাম বলেন, বেবিটিউবের মাধ্যমে নিশ্চিত হবে সুস্থ ও সুন্দর জীবন। শিশু-কিশোর বান্ধব সুন্দর পৃথিবী গড়তে চায় বেবিটিউব।

বেবিটিউবের হেড অব পাবলিক রিলেশন মাইনুল ইসলাম ওসামা বলেন,
বেবিটিউবে যারা শিশুতোষ কন্টেন্ট আপলোড করবে তাদের জন্য রয়েছে সহজ শর্তে মনিটাইজেশান সিস্টেম। এবং বেবিটিউবে আছে শিশু-কিশোরদের মজাদার এবং শিক্ষণীয় পরিবেশ।  শিশু-কিশোররা সুন্দরভাবে এটি উপভোগ করবেন।

আপনার মতামত দিন